Take a fresh look at your lifestyle.

২৬টি ব্যাংক হিসাব ফ্রিজ ও দুই আসামির সম্পত্তি ক্রোকের প্রক্রিয়া শুরু

যশোর শিক্ষা বোর্ডের ৭ কোটি টাকার চেক জালিয়াতি

0

প্রতিবেদক :
যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেক জালিয়াতির ঘটনায় ২৬টি ব্যাংক একাউন্ট অবরুদ্ধ (ফ্রিজ) ও দুই আসামির সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ দিয়েছেন আদালত। এ ব্যাপারে আইনগত প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। শিক্ষাবোর্ডের ৭ কোটি টাকার চেক জালিয়াতি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মো. আল আমিনের আবেদনের প্রেক্ষিতে গত মঙ্গলবার এই আদেশ দেন সিনিয়র স্পেশাল জজ (জেলা জজ) শেখ নাজমুল আলম।

অভিযুক্ত ওই দুজন হচ্ছেন যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চাকরিচ্যুত হিসাব সহকারী আব্দুস সালাম ও প্রেস মালিক সদর উপজেলার রামনগর গ্রামের শেখ মজিদ আলীর ছেলে শেখ শরিফুল ইসলাম। এ দুজনকে দুদক এ জালিয়াতি ঘটনার মূল অপরাধী বলে আখ্যায়িত করেছে। এ দুই জনসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে গত ২০২১ সালের ১৮ অক্টোবর দুদকের দায়ের করা মামলায় ৩৮টি চেক জালিয়াতি করে ৬ কোটি ৯৭ লাখ ৮৫ হাজার ৩৯৮ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে।

দুদকের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাড. মো. সিরাজুল ইসলাম জানান, আদালত আসামিদের উল্লিখিত স্থাবর সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ দিয়েছেন। একইসাথে ওই টাকা লেনদেন হওয়া ২৬টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজের আদেশ দিয়েছেন। আদালতের এই আদেশের নোটিস সংশ্লিষ্ট সাব রেজিস্ট্রার ও ব্যাংক কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠিয়ে দেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। অ্যাকাউন্ট ফ্রিজের জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোর কাছে চিঠি দেয়া হবে। আর সম্পত্তি ক্রোকের জন্য সাব রেজিস্ট্রার, সহকারী কমিশনারসহ (ভূমি) সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চিঠি দেয়া হবে। এরপর সংশ্লিষ্ট সম্পত্তিতে নোটিশ টাঙিয়ে দেয়া হবে। আদালতের নির্দেশের মঙ্গলবার বিকেলে এই প্রক্রিয়া শুরুর জন্য ‘রিকুইজিশন’ জমা দেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে আইনগত প্রক্রিয়া শুরু হলো। আগামী দু’একদিনের মধ্যেই তা সংশ্লিষ্ট সবার কাছে পৌঁছে যাবে। যাতে আসামিরা সম্পত্তি বিক্রি এবং ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করতে না পারেন।

আদালতে দুদকের করা আবেদনে উল্লেখ করা হয়, তদন্তকালে দেখা যায় মামলার ৩ নম্বর আসামি আব্দুস সালাম ও ৪ নম্বর আসামি শেখ শরিফুল ইসলাম এ মামলার মূল অপরাধী। তারা জালিয়াতির মাধ্যমে টাকা আত্মসাৎ করে নিজ/স্ত্রী/আত্মীয়-স্বজনের নামে জায়গা জমি কিনে তার উপর অট্টালিকা নির্মাণ করেছেন। ওই সম্পদ ক্রোক করা না হলে বেহাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে বর্ণিত স্থাবর সম্পদ জরুরি ভিত্তিতে ক্রোক ও আলোচ্য মামলার সংযোগপ্রাপ্ত অস্থাবর সম্পদ/ব্যাংক হিসাবসমূহ অবরুদ্ধ (ফ্রিজ) করা প্রয়োজন।

আবেদনে সম্পদের বর্ণনায় উল্লেখ করা হয়েছে, আব্দুস সালামের যশোর হাউজিং এস্টেটের অধীন ই-বøক ১৪১ নম্বরের নির্মাণাধীন চারতলা বাড়ি। যার জমির মূল্য ৬০ হাজার ও নির্মাণাধীন বাড়ির মূল্য ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা। যশোর শহরের বেজপাড়ায় আব্দুস সালামের স্ত্রী রিক্তা খাতুনের নামে দশমিক ৪৯৭ শতাংশ ও অপর আসামি শেখ শরিফুল ইসলামের নামে দশমিক ৪৯৭ শতাংশ জমি ও সেখানে নির্মাণাধীন ফ্ল্যাট বাড়ি। জমির মূল্য ১৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা ও নির্মাণাধীন দুই ফ্লাটের বিনিয়োগ মূল্য ৫০ লাখ টাকা। শেখ শরিফুল ইসলামের যশোর সদরের চাঁচড়া ইউনিয়নের ৫৯ নম্বর মাহিদিয়া মৌজার চার দাগের ৬৯ শতকের মধ্যে ২০শতক জমি। যার মূল্য ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। যশোর সদরের নওয়াপাড়া ইউনিয়নের ১০৮ নম্বর বোলপুর মৌজার ২১২ ও ১৩৭৮ দাগের মোট ৮১ শতকের মধ্যে ওই আসামির ৬ শতক জমি রয়েছে। যার মূল্য ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা।

আরও বলা হয়েছে, আসামি শরিফুল ইসলামের যশোর শহরের দড়াটানা এলাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালের ২০টি শেয়ারের মধ্যে ১টি যার আর্থিক পরিমাণ ১৪ লাখ টাকা রয়েছে। আসামি আব্দুস সালামের যশোরে সোনালী ব্যাংক বিআইএসই শাখায় ১টি অ্যাকাউন্টে ২৬ হাজার ৮৫৯ টাকা, আসামি শরিফুল ইসলামের মিম প্রিন্টিং প্রেসের নামে অগ্রণী ব্যাংক দড়াটানা শাখায় ১টি অ্যাকাউন্টে ৫ হাজার ৫৯ টাকা, মেসার্স খাজা প্রিন্টিং প্রেসের নামে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক যশোর শাখার ১টি অ্যাকাউন্টে ৫৪ হাজার ৭৭৪ টাকা, নিহার প্রিন্টিং প্রেসের নামে একই ব্যাংকের আরেকটি অ্যাকাউন্টে ১ লাখ ১৬ হাজার ৫৯৯ টাকা, সবুজ প্রিন্টিং প্রেসের নামে দি প্রিমিয়ার ব্যাংক যশোর শাখায় ১টি অ্যাকাউন্টে ২ হাজার টাকা, শরিফ প্রিন্টিং প্রেসের নামে একই ব্যাংকের আরেকটি অ্যাকাউন্টে ১৩ হাজার ৯৩৭ টাকা, আশরাফুল আলমের শাহীলাল স্টোরের নামে ইসলামী ব্যাংক যশোর শাখার অ্যাকাউন্টে ১ হাজার ৪২৩ টাকা, আব্দুস সালামের ছেলে শহিদুল ইসলামের নামে প্রাইম ব্যাংক যশোর শাখার ১টি অ্যাকাউন্টে ১ হাজার ৩৬৬ টাকা, শেখ শরিফুল ইসলামের মদিনা এন্টারপ্রাইজের নামে প্রাইম ব্যাংক যশোর শাখার ১টি অ্যাকাউন্টে ২৩ হাজার ১শ’ টাকা, সানিয়া ইলেক্ট্রনিক্সের নামে ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের ১টি অ্যাকাউন্টে শূন্য টাকা, একই ব্যাংকে গাজী নুর ইসলামের নুর এন্টারপ্রাইজের নামে ১টি অ্যাকাউন্টে শূন্য টাকা, রূপালী খাতুনের প্রত্যাশা প্রিন্টিং প্রেসের নামে ১টি অ্যাকাউন্টে শূন্য টাকা, শরিফুল ইসলামের ভেনাস প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিংয়ের নামে ১টি অ্যাকাউন্টে ১ হাজার ৫৬৪ টাকা, ১টি অ্যাকাউন্টে ১২ হাজার ২৫০ টাকা, ১টি অ্যাকাউন্টে ১ লাখ ৬৪ হাজার ১৮৮ টাকা, ১টি অ্যাকাউন্টে ১ লাখ ৯ হাজার ১২৫ টাকা, ১টি অ্যাকাউন্টে ৩ লাখ ২৭ হাজার ৩৭৫ টাকা, ১টি অ্যাকাউন্টে ১ লাখ ৯ হাজার ৩২৫ টাকা, ১টি অ্যাকাউন্টে ৩ লাখ ২৭ হাজার ৩৭৫ টাকা, সনেক্স ইন্টারন্যাশনালের নামে ১টি অ্যাকাউন্টে ৭ হাজার ৮৮১ টাকা, ল্যাপটপ মিউজিয়ামের নামে ১টি অ্যাকাউন্টে শূন্য টাকা, শরিফুল ইসলামের নিজ নামে ১টি অ্যাকাউন্টে ৫ হাজার ১৭৬ টাকা, এনআরবিসি ব্যাংক যশোর শাখায় শরিফুল ইসলামের ভেনাস প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিংয়ের নামে ১টি অ্যাকাউন্টে ২ হাজার ১২০ টাকা, ব্র্যাক ব্যাংক যশোর শাখায় শরিফুল ইসলামের এস কে শরিফুল ইসলামের নামে ১টি অ্যাকাউন্টে শূন্য টাকা ও ডাচ ব্যাংলা ব্যাংক যশোর শাখায় শরিফুল ইসলামের আইডিয়াল প্রিন্টিং প্রেসের নামে ১টি অ্যাকাউন্টে ৪৩৭ টাকা রয়েছে।

উল্লেখ্য, দুদকের দায়ের করা চাঞ্চল্যকর ওই মামলায় আব্দুস সালাম ও শেখ শরিফুল ইসলাম ছাড়াও যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের তৎকালীন চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোল্লা আমির হোসেন, তৎকালীন সচিব প্রফেসর এএমএইচ আলী আর রেজা ও যশোর নতুন উপশহর এলাকার হাইকোর্ট মোড় জামরুলতলার শাহীলাল স্টোরের মালিক আশরাফুল আলমকে আসামি করা হয়।

স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি ক্রোক ও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজের ওই আবেদনে ৩৮টি চেকের মাধ্যমে জালিয়াতির বর্ণনা দিয়ে উল্লেখ করা হয়, ২টি চেক সোনালী ব্যাংক বিআইএসই শাখা যশোর থেকে, ২টি চেক অগ্রণী ব্যাংক দড়াটানা যশোর শাখা থেকে মিম প্রিন্টিং প্রেসের নামে, তিনটি চেক মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক যশোর শাখার মেসার্স খাজা প্রিন্টিং প্রেস ও নিহার প্রিন্টিং প্রেসের নামের হিসাবে, ২টি চেক দি প্রিমিয়ার ব্যাংক যশোর শাখার সবুজ প্রিন্টিং প্রেস ও শরীফ প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিংয়ের নামের হিসাবে, ২টি চেক ইসলামী ব্যাংক যশোর শাখার শাহী লাল স্টোরের নামের হিসাবে, ২৭টি চেক ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামি ব্যাংক যশোর শাখার সানিয়া ইলেকট্রনিক্স, নুর এন্টারপ্রাইজ, প্রত্যাশা প্রিন্টিং প্রেস, ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিংয়ের নামে জমা হয়ে ক্লিয়ারিং হয়। এভাবে উল্লিখিত ৬ কোটি ৯৭ লাখ ৮৫ হাজার ৩৯৮ টাকা আত্মসাত করা হয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.