Take a fresh look at your lifestyle.

অভয়নগরে ১৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ

0

শাহিন হোসেন, অভয়নগর প্রতিনিধি :
চলতি বোরো মৌসুমে যশোরের অভয়নগর উপজেলায় ১৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে লক্ষ্যমাত্রার শতকরা ৮০ ভাগ জমিতে বোরো ধান রোপন সম্পন্ন হয়েছে। অবশিষ্ট জমি থেকে সরিষা উত্তোলন করে ধান রোপনের জন্য জমি প্রস্তুত করছে কৃষকরা।

উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্র জানায়, গত বছর বোরো মৌসুমে এ উপজেলায় বোরো ধানের চাষ হয় ১২ হাজার ২শ’ হেক্টর জমিতে। সে হিসেবে চলতি মৌসুমে উপজেলায় ১৮শ’ হেক্টর জমিতে বোরো চাষ বেড়েছে। আবহাওয়া অনুকূল থাকলে স্থানীয় চাহিদার তুলনায় অধিক পরিমাণ ধান উৎপাদনের সম্ভাবনা দেখছে কৃষি বিভাগ।

তবে কৃষকরা বলছেন, জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি ও বিদ্যুতের দাম বেড়ে যাওয়ায় তাদের সেচ খরচ দ্বিগুণ হয়েছে। তাছাড়া বীজ, সার, কীটনাশক, মজুরিসহ সকল কিছুর মূল্যই উর্ধ্বমুখি। সেইসাথে বিদ্যুতের লোডশেডিং তো রয়েছেই। ফলে চলতি বোরো মৌসুমে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিয়ে কৃষক উৎকন্ঠায় রয়েছে। এ ব্যাপারে ধোপাদী গ্রামের ধানচাষী রহিম হোসেন বলেন, একবিঘা জমিতে সেচ দিতে খরচ হচ্ছে ৪ হাজার থেকে সাড়ে ৪ হাজার টাকা। ধানের চারা, সার, কীটনাশক, মজুরিসহ বিঘা প্রতি একজন কৃষকের ২২ হাজার থেকে ২৪ হাজার টাকা খরচ হবে। আবহাওয়া অনুকূল থাকলে এবং ফলন ভালো হলে কৃষক টিকে থাকবে। অন্যথায় কৃষককে চরম ক্ষতির মুখে পড়তে হবে। এজন্য তিনি উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের মাঠ পর্যায়ে তদারকি বৃদ্ধির দাবি জানান।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোছা. লাভলী খাতুন বলেন, সরকারের নানামুখি পদক্ষেপ, বিভিন্ন পর্যায়ে ভর্তুকি চালু, পর্যাপ্ত সার সরবরাহ, কৃষি অফিসের তদারকি, সার ও বীজ মনিটরিং যথাযথ হওয়ায় এবং ধানের বর্তমান বাজার মূল্য বেশি থাকায় কৃষকরা ধান চাষে অধিক মনোযোগি হয়েছে।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.